চোখের সৌন্দর্য চর্চা

চোখ হলো সৌন্দর্যের সেই হাতিয়ার যা সহজেই অন্যকে যেমন আকর্ষণ করে,তেমনি প্রতিটি অভিব্যক্তি পরিপূর্ণভাবে পৌঁছে দেয় যেমনটি আপনি চান ঠিক সেই ভাবে। চোখের মেকআপ হওয়া উচিত পরিবেশ আর পরিস্থিতি অনুসরণ করে।

মাস্কারাঃ-মাস্কারা ব্যবহার এর আগে ব্রাশটিতে জমাট মাস্কারা লেগে থাকলে সেগুলো ঝেড়ে পরিষ্কার করে ব্যবহার করুন। চোখের পাতায় আলগা মাস্কারা ওয়াশ দিয়ে ঝেড়ে ফেলুন। সব সময় নামী কোম্পানির মাস্কারা ব্যবহার করুন। দেশী কিংবা অজানা কোন কোম্পানির মাস্কারা ব্যবহার করবেন না। এতে চোখের ত্বকের মারাত্মক ক্ষতির পাশাপাশি চোখ ও সংক্রামিত হতে পারে।

আই লাইনারঃ-আই লাইনার ব্যবহারের আগে দেখে নিন ব্রাশটির ডগা ঠিক আছে কিনা। এছাড়া বাঁশের ডগায় কোনো ময়লা আছে কিনা সেটা পরিষ্কার করে নিন। ভালো করে চোখ শুকিয়ে নিন। ভেজা চোখে কখনোই আই লাইনার ব্যবহার করবেন না। বর্ষাকালে ওয়াটার রেসিস্ট্যান্ট আই লাইনার ব্যবহার করবেন। অবশ্যই চেষ্টা করবেন নামী কোম্পানির আই লাইনার ব্যবহার করতে।

আই শ্যাডোঃ-চোখের পাতার উপর কোন দাগ থাকলে সেখানে আই শ্যাডো সমানভাবে লাগিয়ে নিন। চোখের নিচে কালি পড়েলে কনসিলারের এর বদলে ত্বকরঙা আইশ্যাডো ব্যবহার করুন। চোখের গভীরতা বাড়াতে গাঢ় রঙের আইশ্যাডো ব্যবহার করুন। ক্রিম আইশ্যাডো হাতের কাছে না থাকলে ভালো কোল্ড ক্রিম এর সাথে আপনার টি মিশিয়ে ব্যবহার করুন। আইশ্যাডো ব্রাশ ব্যবহার করার আগে অবশ্যই মুছে পরিষ্কার করে নিন।

কাজলঃ-কাজল পেনসিলের মুখ সরু রাখুন।সন্ধ্যার সাজের জন্য কাজলের মুখটা একটু বোতা করে নিয়ে চোখের উপরে ও নিচে একটু মোটা করে রেখা টানুন। যাদের চোখের নিচের পাতা কম তারা চোখের নিচের কাজলের শুরু রেখা টেনে রাখুন।

ভুরু প্রসাধনঃ- চোখের উপরে থাকে ভুরু। চোখের পরিচর্যা করতে হলে প্রথমে ভুরু শেপ করে নেবেন। এর উপর আলতো করে ভুরু পেন্সিল চালিয়ে ভুরুতে আনবেন সঠিক রেখা। চোখের পাতায় মাস্কারা দিয়ে ঘনত্ব বাড়ানোর পরে পাতার উপর দিতে পারেন মানানসই আই শ্যাডোর রেখা(কেবল উপরের পাতায়)। ভুরু কে আরও সুন্দর করতে হলে থ্রেড করতে হয় কিংবা আঁকতে হয়। নিজে নিজে ভ্রু প্লাক করতে হলে কয়েকটি নিয়ম মেনে চলতে হয়। সেগুলো জেনে নিন। ভুরু কখনো খুব সরু করবেন না। চোখের খুব কাছাকাছি যদি ভুরুর অবস্থান হয় তাহলে ভুরুর নিচের দিকে থেকে গজিয়ে ওঠা ভুরু তুলে ফেলুন। এ কাজে একটা টুইজার হলেই যথেষ্ট। চোখের এক কোন থেকে একটি পেন্সিল কোনাকুনি করে ভুরুর শেষ প্রান্ত পর্যন্ত ধরে দেখে নিন বাড়তি লোম আছে কিনা। একটি ভুরু যেভাবে প্লাক করবেন–অপরটি ও সেভাবে করতে হবে। যারা নিয়মিত ভুরুর যত্ন করেন,তারা সকালে বাইরে বেরোবার আগে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে দেখে নেবেন বাড়তি লোম তোলার দরকার আছে কি না। এই নিবন্ধে মোটামুটি ভাবে চোখ ও ভুরুর যত্ন সম্পর্কে কিছুটা অভিজ্ঞতা দেওয়া হল।

Check Also

পুরুষের গুণাগুণ বিচার

সর্বতােভাবে সুখী হয় সেই ব্যক্তিই যার কণ্ঠস্বর , বুদ্ধি ও নাভি গভীর । হয় । …