প্রিটিকিন রান্না

প্রিটিকিনী রান্নার মূল কথাটি হলো রান্নার তেল ঘি চিনি অল্প মাত্রায় নয়,পুরোপুরি বর্জন।আর নুনের ব্যবহার অনুমোদিত পরিমাণে (সর্বমোট জনপ্রতি প্রতাহ ৩-৪ গ্রাম)

বস্তুুত তেল-না ঘি-না,মিষ্টি-না,স্বল্প-নুন,প্রিটিকিনী রান্না বলতে এক কথায় আমরা বুঝি সিদ্ধ।কিন্তু বিশেষ পদ্ধতি প্রয়োগে বিধি নিষেধ লংঘন না করেও রান্নাটি করা যায় সুস্বাদু ও লোভনীয়।

অভ্যস্ত রান্নার থেকে প্রিটিকিনী রান্নার আর কোন মৌলিক পার্থক্য নেই,শুধু এক্ষেত্রে রান্নাতে তেল ঘি চিনি বাদ দিয়ে,নুন কমিয়ে,পক্ষান্তরে base হিসাবে নানাবিধ মসলা,লেবুর রস,দই প্রভৃতি দিয়ে সুস্বাদু রান্নার আয়োজন।এখানে রান্নার যে সমস্ত প্রণালী বলব তার সবগুলি হলো প্রচলিত বাঙালী রান্নাকে প্রিটিকিনের দৃষ্টিভঙ্গি অনুযায়ী কিভাবে সুস্বাদু করা যায় তা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফল।আপনারা নিজেরাও এগুলি থেকে একটা প্রাথমিক ধারণা নিয়ে,পরীক্ষা করে,পছন্দ মতো খাবার তৈরি করতে পারেন।

Check Also

পুরুষের গুণাগুণ বিচার

সর্বতােভাবে সুখী হয় সেই ব্যক্তিই যার কণ্ঠস্বর ,  বুদ্ধি ও নাভি গভীর । হয় ।  …